News

এই রনি সেই রনি

এবার ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিমের বিরুদ্ধে ইউনাইটেড কোচিং সেন্টারের মালিক রাশেদ মিয়াকে তুলে নিয়ে অস্ত্রের মুখে ‘মিথ্যা স্বীকৃতি’ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে রাশেদ মিয়া গত বুধবার (১১ জুলাই) রাতে বায়েজিদ থানায় নুরুল আজিমসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ।

গত বুধবার বেলা ২টা ৫৩ মিনিটে নুরুল আজিম তাঁর নিজের ফেসবুকে তিনটি ভিডিও শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন, দেরিতে হলেও সুমতি হয়েছে রাশেদের। ভিডিও চিত্রে দেখা যায়, রাশেদ মিয়াকে ঘিরে রয়েছেন বেশ কয়েকজন ব্যক্তি। তাঁরা রাশেদ মিয়াকে নানান কথা শিখিয়ে দিচ্ছিলেন, পাশাপাশি বিভিন্ন প্রশ্নও করছিলেন। রাশেদকে নুরুল আজিমের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথা বলতে শোনা যায়। এ তিনটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

থানায় করা অভিযোগে রাশেদ মিয়া উল্লেখ করেন, টিউশনি শেষে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুলের মোড়ে দাঁড়িয়ে তাঁর এক পরিচিত ছাত্রের সঙ্গে নাশতা করছিলেন। এ সময় চারটি মোটরসাইকেলে করে নুরুন্নবী সাহেদ, খোরশেদ, মামুন ও সেলিমের নেতৃত্বে ১০-১২ জন অস্ত্রধারী তাঁদের দুজনকে ঘিরে রাখে। পরে অস্ত্রধারীরা মুঠোফোনে নুরুল আজিমের সঙ্গে তাঁকে কথা বলিয়ে দেয়।

রাশেদ মিয়া বলেন, ফোনে নুরুল আজিম ঘিরে রাখা সেই অস্ত্রধারীদের সঙ্গে বাদশাহ কমিউনিটি সেন্টারে যেতে বলেন। না হলে তারা আমাকে খুনও করে ফেলতে পারে বলে জানান তিনি। পরে আমি ও আমার ছাত্রকে মোটরসাইকেলে করে কমিউনিটি সেন্টারটিতে নিয়ে যায় অস্ত্রধারীরা। এরপর তারা আমাদের দুজনকে একটি অন্ধকার কক্ষে আটকে রেখে মারধর করে। পরে অস্ত্রের মুখে তারা তাদের শিখিয়ে দেওয়া কথা আমাকে বলতে বাধ্য করে। আমার কথা বলার সময় তারা ভিডিও করে রাখে। পরে তারা অস্ত্রের মুখে তিনটি খালি স্ট্যাম্পে তাদের শিখিয়ে দেওয়া কথা লিখে ও আমাদের সই নিয়ে রাত ১২টার দিকে মোটরসাইকেল থেকে ধাক্কা দিয়ে ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল মোড়ে ফেলে যায়।

রাশেদ মিয়ার অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করে বায়েজিদ থানার ওসি মো. আতাউর রহমান খন্দকার বলেন, নুরুল আজিমের বিরুদ্ধে তুলে নিয়ে মারধরের বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’

তবে অভিযোগের বিষয়ে নুরুল আজিমের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, রাশেদ মিয়াকে নুরুল আজিমের চড় মারার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয় গত ১৯ এপ্রিল । এ ঘটনায় নুরুল আজিমের বিরুদ্ধে ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে নগরের পাঁচলাইশ থানায় মামলা করেন রাশেদ মিয়া। এ ঘটনার পর ছাত্রলীগের নগর সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে নুরুল আজিমকে অব্যাহতি দেয় সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সংসদ।

এ ছাড়া ৪ এপ্রিল চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জাহেদ খান বাদী হয়ে নুরুল আজিমসহ ছাত্রলীগের সাত নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে নগরের চকবাজার থানায় ২০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে মামলা করেছিলেন। জাহেদ খানকেও মারধর করার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। জাহেদ খানের করা মামলায় নুরুল আজিমকে ৪ জুন কারাগারে পাঠান আদালত। পরে ৭ জুন জামিন পান তিনি।

উৎসঃ   purboposhchim

Leave a Reply

*

*