News

মাদক মামলার আসামি যুবলীগ নেতার মুক্তির জন্য শিশুদের দিয়ে মানববন্ধন

আটক শেখ হারুন জেলা যুবলীগের জেলা কমিটির সদস্য। সদর উপজেলার বরইতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি তিনি। তার স্ত্রী নার্গিস আক্তার শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণে বাধ্য করেন বলে অভিযোগ করেছেন বরইতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আরিফুর রহমান। আরিফুর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “শিক্ষার্থীদের দিয়ে মানববন্ধন করানোর জন্য জেলখানা থেকে শেখ হারুন কয়েক দফা চিরকুট পাঠিয়েছেন শিক্ষকদের কাছে। আমরা কর্মসূচি বাস্তবায়ন না করায় হারুন তার স্ত্রীকে দিয়ে বুধবার এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করান।” কর্মসূচির সময় বিদ্যালয়টির মোট চার শিক্ষকের মধ্যে আরিফুর রহমান নিজে ও অন্য দুই শিক্ষক বিদ্যালয়ে ছিলেন বলে তিনি জানান। বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব বাবুলচন্দ্র দেবনাথ দাবি করেছেন, তিনি মানববন্ধন করতে নিষেধ করেছিলেন। তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি প্রশিক্ষণে আছি। খবর পেয়ে আমি তাদের নিষেধ করেছি। কিন্তু বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি হারুনের স্ত্রী শিরিন আক্তার জোর করে শিক্ষার্থীদের দিয়ে মানববন্ধন করান।”

 

হারুনের মুক্তির দাবিতে ‘আনাকাঙ্ক্ষিতভাবে’ বিদ্যালয়টির শিক্ষক, শিক্ষার্থী, ব্যবস্থাপনা কমিটি ও অভিভাবকদের নামে পোস্টার টানানো হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। এ বিষয়ে নার্গিস আক্তার বলেন, “গত ২২ মে জেলা শহরের ল ইয়ার্স কলোনির ভাড়াবাসা থেকে তাকে (হারুন) আটক করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। তাকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।” শিক্ষার্থীদের দিয়ে মানববন্ধন করানোর বিষয়টি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মোল্লাও শুনেছেন বলে জানান। তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এটা সত্যিই দুঃখজনক। এ বিষয়ে তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” হারুনের বিরুদ্ধে একটি মাদক মামলা রয়েছে জানিয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই এহতেশাম বলেন, “হারুন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী।” হারুন জেলা যুবলীগের সদস্য বলে জানিয়েছেন জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল্লাহ আল নোমান।

Leave a Reply

*

*